1. neayzmorshed2020@gmail.com : samikkhon :
September 30, 2022, 4:02 pm

চীনের দীর্ঘতম নদী ইয়াংজি শুকিয়ে যাচ্ছে 

সমীক্ষণ নিউজ ডেক্স:
  • প্রকাশের সময় : Monday, August 15, 2022
  • 47 বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

চীনের দীর্ঘতম নদী ইয়াংজি তীব্র দাবদাহের কারণে শুকিয়ে যেতে বসেছে। ফলে নদীটির অববাহিকায় খরা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে এবং কৃষি খাতে বিপর্যয়েরে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় এরই মধ্যে বিপুলসংখ্যক পানির পাম্প বসানো হয়েছে। কৃত্রিমভাবে বৃষ্টিপাতের ব্যবস্থা করতে ব্যবহার করা হচ্ছে ক্লাউড সিডিং রকেট।

 

 

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চীনের ওই অঞ্চলে চলমান দাবদাহ আরও দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় থাকতে পারে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা। ইয়াংজির মধ্য এবং নিম্ন অববাহিকায় তাপমাত্রা এরই মধ্যে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে গেছে। বিগত এক মাসেরও বেশি সময় ধরে এই তাপমাত্রা বিরাজ করছে।

 

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই পরিস্থিতির মূল কারণ হলো জলবায়ু পরিবর্তন। চলমান এই দাবদাহ এবং নদীর পানি কমে যাওয়ায় চীনের আসন্ন হেমন্তকালীন কৃষি ব্যবস্থা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। সাংহাই সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয় এরই মধ্যে ইয়াংজি অববাহিকায় ২৫টি বিশেষজ্ঞ টিম মোতায়েন করেছে শস্য রক্ষা করতে।

 

 

চলমান এই দাবদাহ বলে আরও দুই সপ্তাহ দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে। দেশটির বিজ্ঞানীরা বলছেন, ১৯৬১ সালের পর এই তাপমাত্রা এই অঞ্চলে সর্বোচ্চ এবং সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী দাবদাহ। বিজ্ঞানীরা বলছেন, গত জুলাই মাসে ইয়াংজির অববাহিকাজুড়ে গড় বৃষ্টিপাতের চেয়ে অন্তত ৩০ শতাংশ কম হয়েছে এবং আগস্টে সেই হার বৃদ্ধি পেয়ে ৬০ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে। বর্তমানে ইয়াংজি নদীর প্রবাহ অনেকটাই কমে গেছে।

 

 

এদিকে, ইউরোপজুড়েই জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব বেশ ভয়াবহ হয়ে দেখা দিচ্ছে। তীব্র উষ্ণতা, দাবানলের পর এবার পানি সংকট দেখা দিয়েছে ইউরোপের নদীগুলোতে। ইংল্যান্ডের টেমসের পর এবার নাব্যতা সংকটে পড়েছে জার্মানির রাইন নদী। নাব্যতা সংকট তৈরি হওয়ায় নদীটিতে নৌযান চলাচল বাধাগ্রস্ত হয়েছে ব্যাপকভাবে। ফলে দেশটির সরবরাহ চেইনে বড় ধরনের ধাক্কা লাগতে যাচ্ছে। বিশ্লেষকদের ধারণা, এর ফলে দেশটি সংকট থাকা অর্থনীতি আরও সংকটে পতিত হতে পারে।

 

 

চলতি বছরের জুলাই মাসেই জার্মানির ফেডারেল ইনস্টিটিউট অব হাইড্রোলজি সতর্ক করে বলেছিল, ফ্রাঙ্কফুর্টের পশ্চিমে অবস্থিত কাউব গেজে (পানির উচ্চতা পরিমাপক পয়েন্ট) পানির প্রবাহ এরই মধ্যে বছরের এই সময়ের গড় উচ্চতার মাত্র ৪৫ শতাংশে নেমে গিয়েছে। যা জাহাজ চলাচলে ‘নিয়মিত বাধা’ তৈরি করেছে।

 

 

অপরদিকে, ব্রিটেনের নদীগুলোর উৎসমুখে পানি শুকিয়ে যেতে শুরু করেছে। কিছু কিছু নদীর উৎসমুখ এরই মধ্যে শুকিয়ে ছোট নালায় পরিণত হয়েছে। এরই ফলাফল হিসেবে দেশটিতে খরার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। পানিসংকটের কারণে নাগরিকদের পানির ব্যবহার কামানোর নির্দেশ দিতে যাচ্ছে যুক্তরাজ্য সরকার।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2021 samikkhon.com
samikkhon :
x