1. neayzmorshed2020@gmail.com : samikkhon :
August 13, 2022, 6:55 pm

একটি ছবির গল্প 

লিখেছেন,   নাসির আলী মামুন
  • প্রকাশের সময় : Monday, August 1, 2022
  • 43 বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
ছবি : নাসির আলী মামুন/ফটোজিয়াম

স্বাধীন, সার্বভৌম বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমান। বিশ্ব রাজনৈতিক ইতিহাসের পাতায় যার নাম লেখা রয়েছে স্বর্ণাক্ষরে। ‘এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম’ ৭ মার্চের সেই বজ্রকণ্ঠ আজও বাংলার আকাশে বাতাসে ধ্বনিত হয়। কেঁপে-কেঁপে ওঠে পত্র-পল্লব, প্রকৃতি’ এই বাংলার জনপদ।

 

রাষ্ট্রের শাসনতন্ত্রের মতো বঙ্গবন্ধুর সেই বাণী যেন বাঙালির পথচলার এক বাতিঘর। তাঁর ব্যক্তিগত এবং রাজনৈতিক জীবন থেকে আমরা ফিরে পাই প্রেরণা-শক্তি আর অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করার বিপুল আয়োজন। ধর্মনিরপেক্ষতা, জাতীয়তাবাদ এবং গণতন্ত্রের পথে এগিয়ে গিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রকৃত সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করাই বাঙালির সাধনা। এই মুক্তির সংগ্রামে আমরা দলমত ভুলে গিয়ে তাঁর স্বপ্নকে যদি পরিপূর্ণ করতে পারি, তবেই আমরা প্রকৃত স্বাধীনতার মর্যাদায় পৃথিবীতে বাংলাদেশের সত্যিকারের ইতিহাসটি রচনা করতে পারব।

 

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় যার দুর্বার নেতৃত্ব আমাদের মধ্যে তীব্র শক্তি সঞ্চারিত করেছিল, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট তিনি হঠাৎ স্তব্ধ হয়ে গেলেন। সপরিবারে হত্যা করা হলো তাঁকে। অভিভাবকহীন হয়ে পড়ল বাঙালি জাতি। অসম্পূর্ণ থেকে গেল তাঁর রচিত স্বপ্নগুলো। শেষ হলো না তাঁর কর্মময় বর্ণাঢ্য জীবনের সিদ্ধান্তগুলো। তবে আমাদের আকাক্সক্ষা ও অঙ্গীকার থেকে সরে আসা চলবে না, যেসব পরিকল্পনা তিনি বাস্তবায়ন করতে চেয়েছিলেন, সেগুলো যেন আমরা সম্মিলিতভাবে বাস্তবায়িত করতে পারি, তাহলেই বলতে পারব আমরা বঙ্গবন্ধুকে সত্যিই ভালোবাসি। তিনি বাঙালির শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিত্ব।

 

এই মহান নেতা ছিলেন ধর্মনিরপেক্ষ। এই আদর্শে আমরা এখনও তাঁকে মেনে চলছি। কিন্তু তাঁর অন্য সকল চিন্তা থেকে আমরা যেন ধীরে ধীরে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছি। আমাদের মধ্যে তাঁর আদর্শ এবং চিন্তার উত্তাপ যেন আরও গভীরভাবে সঞ্চারিত হয়, এটি বর্তমানে বিশেষ জরুরি। বিংশ শতাব্দীতে যে সকল কীর্তিমান ব্যক্তিত্ব বিশ্ব রাজনীতিকে নাড়া দিতে পেরেছিলেন, বঙ্গবন্ধু তাদের অন্যতম। এমন একজন কর্মময় ও ব্যাপক ব্যক্তিত্বকে পাথেয় না করলে আমরা রাজনৈতিকভাবে পথহারা হব, সংশয় নেই। তিনি আজ নির্দিষ্ট কোনো দলের নয়, সমগ্র বাঙালি জাতির গৌরব। বাঙালির সকল সময়ের অহংকার এবং প্রেরণার মহাফেজখানা।

 

বিশ্বে বাংলাদেশ এবং বাঙালি জাতির প্রতিষ্ঠাতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এই মুখচ্ছবিটি আমরা কম্পমান ক্যামেরায় বন্দি করেছিলাম ১৯৭৩ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর একটি সামরিক অনুষ্ঠানে। তখন তিনি প্রধানমন্ত্রী, আমাদের নেতা। বিশাল ব্যক্তিত্বের এই মহান মানুষটির ছবি দেখে কে বলবে তিনি আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট। এমন মানুষটির এই অমলিন হাসি সকল বাঙালির হাসিতে রূপান্তরিত হোক’ এ যেন বর্তমান ক্রান্তিকালের একখণ্ড অমোঘ বার্তা।

 

 

বর্তমান বিমূর্ত রাজনৈতিক সংকট থেকে উত্তরণের জন্য আমরা সবাই যেন এই ছবিটির দিকে তাকাই। দেখি বঙ্গবন্ধু কী দিকনির্দেশনা দেন’ এই বিরল হাসি বলে দিচ্ছে, আমরা যেন সংকটে, আনন্দে তাঁকে ভুলে না যাই। তাঁকে ভুলে যাওয়া আমাদের পক্ষে অসম্ভব। তিনি ছবি হয়ে আছেন আমাদের হৃদয়ে হৃদয়ে। যদিও কেঁদে আর পাব না তাকে। কিন্তু তিনি ফিরে ফিরে আসবেন সকল উদ্যোগে প্রেরণার উৎস হিসেবে।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2021 samikkhon.com
samikkhon :
x